kalerkantho


‘রাজা’রা আসছেন তাই আছে রাজত্বের আশাও

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



‘রাজা’রা আসছেন তাই আছে রাজত্বের আশাও

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ‘রাজা’রা এসে পড়ছেন। তাই ক্রমেই ফুলে-ফেঁপে উঠছে তিন ম্যাচের দুটোই হারা রংপুর রাইডার্সের রাজত্বের দখল বুঝে পাওয়ার আশাও।

রাজত্ব বলতে বিপিএলের শিরোপা। আর রাজা?

একই সঙ্গে ক্রিস গেইল এবং ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। প্রথমজন আগেও বিপিএলে খেলে গেছেন। পরেরজন আসছেন এবারই প্রথম। আজ রাতেই ঢাকায় এসে পৌঁছানোর কথা আছে নিউজিল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক ম্যাককালামের। আর গেইল আসবেন আগামীকাল সকালে। দুজনের আগমনের পদধ্বনিতে মুখরিত রংপুর শিবির রীতিমতো রাজার মর্যাদাই দিচ্ছে এই দুই বিস্ফোরক ব্যাটসম্যানকে। দলটির প্রধান নির্বাহী ইশতিয়াক সাদেকের মুখেও শোনা গেল সেই বিশেষণই, ‘তাঁরা দুজন তো টি-টোয়েন্টির কিং। ’

তাঁদের দুজন এসে নিশ্চিতভাবেই ইনিংস ওপেন করবেন রংপুরের হয়ে।

যা রীতিমতো স্বপ্নের ওপেনিং জুটিও। ১৮ নভেম্বর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের বিপক্ষে রংপুরের ম্যাচেই এই জুটির দেখা মিলতে চলেছে। তাঁদের ব্যাটে চড়ে বহুদূর যাওয়ার স্বপ্ন না দেখারও কোনো কারণ নেই। ওই দুজনের অগ্রবর্তী হিসেবে গতকালই রাইডারদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আরেক মারকুটে ব্যাটসম্যান শ্রীলঙ্কার কুশল পেরেরাও। যা রংপুরের ব্যাটিং শক্তির গভীরতাও বহু গুণ বাড়াবে বলে বিশ্বাস ইশতিয়াকের, ‘কুশল আজ এসে গেছে। গেইল-ম্যাককালাম চলে এলে দলের ব্যাটিং গভীরতাও বেড়ে যাবে অ-নে-ক। ’

গেইল-ম্যাককালামের মিলিত ব্যাটিং বিস্ফোরণের আগে নিজেদের দলের হাওয়াটাও আমূল বদলে যাবে বলে আশা রংপুর রাইডার্সের প্রধান নির্বাহীর, ‘এই দলের সঙ্গে তাঁরা যুক্ত হলে আমাদের মনোবল শতভাগ বেড়ে যাবে। আশা করছি এ দলটিই দারুণ খেলা উপহার দিয়ে সামনে এগিয়ে যাবে। ’ এগিয়ে যেতে সফল হতে হবে গেইল-ম্যাককালামের ওপেনিং জুটিকেও। যে জুটির দেখাও মিলছে বহুদিন পর, ‘প্রায় এক দশক আগে এই জুটি দেখা গিয়েছিল। ’

কলকাতা নাইট রাইডার্সের (কেকেআর) হয়ে দেখা গিয়েছিল ২০০৯ সালের আইপিএলে। ছয়টি ম্যাচে ইনিংস ওপেন করেছিলেন গেইল-ম্যাককালাম? সেই ছয় ম্যাচে তাঁদের সর্বোচ্চ পার্টনারশিপটি ৫৭ রানের। অন্য পাঁচ ম্যাচের পার্টনারশিপগুলো এ রকম—১, ২৫, ৮, ০ ও ২৩ রানের। অর্থাৎ নামের ভারেই শুধু কাজ হয় না, দলের প্রয়োজনটাও মেটাতে হয়।

গেইল-ম্যাককালামরা সেই প্রয়োজন মেটাবেন বলেই তো তাঁদের নিয়ে আসছে রংপুর রাইডার্স। তাঁদের পারফরম্যান্সও ফ্র্যাঞ্চাইজির আশার সমানুপাতিক হবে বলে মনে করেন ইশতিয়াক। তাঁদের উপস্থিতিও প্রতিপক্ষ শিবিরে আতঙ্ক ছড়ানোর পক্ষে যথেষ্ট বলে মনে করেন তিনি। এর সঙ্গে পারফরম্যান্স যোগ হলে তো কথাই নেই, ‘গেইল-ম্যাককালাম চলে এলে নাম এবং কাজের ভার মিলিয়ে প্রতিপক্ষের ঘুম হারাম করে দেওয়া যাবে। ’

অবশ্য তাঁরা মাঠে নামার আগেই গেইল-ম্যাককালাম ঝড়ে রংপুরের কয়েক বিদেশির উড়ে যাওয়া নিশ্চিত, ‘কয়েকজন বিদেশিকেও আমরা দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেব। প্রয়োজন না পড়লে আর আনব না। পাশাপাশি কিছু স্থানীয় ক্রিকেটারকেও (ইলিয়াস সানী ও শামসুর রহমান) স্ট্যান্ড বাই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। ওরা অবশ্য সব সুযোগ-সুবিধাই পাচ্ছে। ’ এবার ‘রাজা’দের ব্যাটেও পুরোটাই পাওয়ার আশা রংপুরের।


মন্তব্য