kalerkantho


গেইল-ম্যাককালাম ঝড়ের প্রত্যাশায়

১৮ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



গেইল-ম্যাককালাম ঝড়ের প্রত্যাশায়

আজই... মরা গাঙে ভরা জোয়ার আনার জন্য ক্রিস গেইল ও ব্রেন্ডন ম্যাককালামের চেয়ে বড় নাম আর কী হতে পারে! তাঁরা দুজনই বিনোদনের ফেরিওয়ালা। বিশেষত টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে চাহিদা আকাশস্পর্শী। না হয় সেরা সময় পেছনে ফেলে এসেছেন, তবু তাঁদের নামই পারে স্টেডিয়ামে দর্শক টেনে আনতে। আর গেইল-ম্যাককালামের এই জুটি তো খেলতে নামছেন একই দলের হয়ে। রংপুর রাইডার্সের জার্সি গায়ে আজ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের হয়ে মাঠে নামবেন দুজন। মাশরাফি বিন মর্তুজার দলের জন্য তো বটেই, পুরো বিপিএলের জন্যই অক্সিজেন হয়ে উঠতে পারেন গেইল-ম্যাককালাম। ছবি : কালের কণ্ঠ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিপিএল যেন জমছে না! বিপিএল কেন জমছে না?

এই আক্ষেপ, এই প্রশ্ন উড়ে বেড়াচ্ছে টুর্নামেন্ট ঘিরে। সিলেট পর্বে দর্শক-উন্মাদনা ছিল ওখানে প্রথমবারের মতো বিপিএল হওয়ায়।

ঢাকায় ফিরতে ফিরতেই সে আগ্রহ উবে যায় কর্পূরের মতো। বিপিএলের ম্যাচগুলোয় প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঝাঁজ নেই, নেই ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের দ্যুতি। সব মিলিয়ে উত্তাল সমুদ্রের গর্জনের প্রত্যাশায় শুরু করা বিপিএলে ক্রমশ যেন মরা গাঙের নিস্তব্ধতা।

সেই মরা গাঙে ভরা জোয়ার আনার জন্য ক্রিস গেইল ও ব্রেন্ডন ম্যাককালামের চেয়ে বড় নাম আর কী হতে পারে!

তাঁরা দুজনই বিনোদনের ফেরিওয়ালা। বিশেষত টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে চাহিদা আকাশস্পর্শী। না হয় সেরা সময় পেছনে ফেলে এসেছেন, তবু তাঁদের নামই পারে স্টেডিয়ামে দর্শক টেনে আনতে। আর গেইল-ম্যাককালামের এই জুটি তো খেলতে নামছেন একই দলের হয়ে। রংপুর রাইডার্সের জার্সি গায়ে আজ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের হয়ে মাঠে নামবেন দুজন। মাশরাফি বিন মর্তুজার দলের জন্য তো বটেই, পুরো বিপিএলের জন্যই অক্সিজেন হয়ে উঠতে পারেন গেইল-ম্যাককালাম।

ক্যারিবিয়ান গেইল বিপিএলের নিয়মিত মুখ। আবারও সেই টুর্নামেন্টে ফিরতে পেরে নিজের উচ্ছ্বাস গোপন করেননি কাল, ‘আবার বাংলাদেশে এসে আর বিপিএলের অংশ হতে পেরে ভালো লাগছে। এবার আমি আরেকটি নতুন দলে। তাকিয়ে আছি কাল প্রথম ম্যাচের দিকে। আশা করি, আমরা ভালো শুরু পাব আর দলকে জয়ের ধারায় ফিরিয়ে আনতে পারব। ’ ম্যাককালাম এই টুর্নামেন্টে এলেন প্রথমবার। এ নিয়ে উচ্ছ্বসিত তিনিও, ‘খুব ভালো লাগছে। বিপিএল তো অনেক দিন ধরেই চলছে। আমার প্রথমবার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের অনেকের কাছ থেকেই অনেক ভালো ভালো কথা শুনেছি বিপিএল নিয়ে। রংপুর রাইডার্সের হয়ে নিজের সেরাটা দিতে আমি মুখিয়ে আছি। ’

দর্শকরা মুখিয়ে আছে এ দুজনের ব্যাটিং দেখার জন্য। চার-ছক্কার ঝরনাধারায় উল্লাসের উপলক্ষ খুঁজছেন তাঁরা। ব্যাপারটি ভালোই জানা গেইলের, ‘আমার আর ম্যাককালাম—দুই অসাধারণ বিনোদনকারী দিয়ে আনন্দিত হতে চায় বাংলাদেশের সবাই। এ কারণে আমাদের ওপর চাপ থাকবে। তবে আমরা এমন কিছুই হতে পারে বলে ভেবেছিলাম। দর্শকরা গ্যালারিতে প্রচুর শব্দ করবে। যদি আমরা ভালো শুরু পাই, প্রচুর বাউন্ডারি মারতে পারি আর দর্শকদের রোমাঞ্চিত করতে পারি তাহলে অসাধারণ একটি ব্যাপার হবে। ’ পরস্পরের সম্পর্কে তাঁদের শ্রদ্ধাবোধও অসীম। ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান যেমন তাঁর ওপেনিং সঙ্গী নিয়ে বলছেন, ‘আমরা জানি, ব্রেন্ডন কতটা ধ্বংসাত্মক হতে পারে। ওর সঙ্গে আবার ব্যাটিং করতে পারা দারুণ ব্যাপার। আমরা আগে আইপিএলে একসঙ্গে ওপেন করেছিলাম। আবার এখানে একসঙ্গে হয়েছি। এখানে চড়াও হওয়া আমাদের দুজনের জন্যই নতুন। তবে আমাদের অভিজ্ঞতা আছে। আমাদের ওপর প্রত্যাশার অনেক চাপ। আমরা কালকের ম্যাচ জিততে নিজেদের সেরা চেষ্টা করব। ’ আইপিএলের অভিজ্ঞতা মনে করে এই জুটি নিয়ে উচ্ছ্বসিত ম্যাককালামও, ‘মাঠের বাইরে আমাদের জমে দারুণ। কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে একসঙ্গে খেলেছি, এখান থেকে কলকাতা খুব দূরে নয়। আবার ওর সঙ্গে জুটি বাঁধার সুযোগ দারুণ ব্যাপার। টি-টোয়েন্টিতে ক্রিস বিশ্বের সবচেয়ে বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানদের একজন। ওর সঙ্গে ব্যাটিং উদ্বোধন করা হবে দুর্দান্ত। ’ হয়তো আমি ওকে স্ট্রাইক দেব আর শুধু দেখব ছক্কা মারতে!

ম্যাককালাম শুধু দেখবেন? আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি ১০৩ ছক্কা না হয় গেইলের! কিন্তু দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯১ ছক্কাই তো কিউই কিংবদন্তির। প্রত্যাশা তাই, দুজনেরই ছক্কা মারার আর দর্শকের তা উপভোগ করার।

দর্শকদের অমন প্রত্যাশার সঙ্গে একই বিন্দুতে মিলে যায় রংপুর রাইডার্সের আশাও। বড্ড প্রয়োজনের সময় যে গেইল-ম্যাককালাম যোগ দিলেন দলের সঙ্গে। বিপিএলে প্রথম ম্যাচ জয়ের পর হেরেছে টানা দুই খেলা। আজ দুই মহাতারকাকে নিয়ে কুমিল্লার বিপক্ষে জয়ের বিকল্প নেই দলটির। ম্যাককালামের কণ্ঠে ওই ভালো করার তাগিদ, ‘তিন ম্যাচে মাত্র একটিতে জিতেছি আমরা। তবে এটি অনেক লম্বা টুর্নামেন্ট। আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যেন আমরা শান্ত থাকি, আতঙ্কিত না হই। আমাদের সাপোর্ট স্টাফ খুবই স্থির, অধিনায়কও ঠাণ্ডা মেজাজের। দলটাও দারুণ। আমি নিশ্চিত, পরস্পরের সঙ্গে যখন মানিয়ে নেব, তখন আমরা ভালো করব। ’ অধিনায়ক মাশরাফির প্রশংসা আলাদা করেই করেন তিনি, ‘ওর সঙ্গেও আমি খেলেছি কলকাতা নাইট রাইডার্সে। সম্পর্কটা দারুণ। কাল মাঠে এসে ওকে দেখে খুব ভালো লেগেছে। মধ্য তিরিশেও দারুণ ফিট। অনেক কিছু অর্জন করেছে ক্যারিয়ারে। শুধু এখানে নয়, পুরো ক্রিকেটবিশ্বেই ওকে সমীহ করে সবাই। ওর নেতৃত্বে খেলতে আমি সত্যিই মুখিয়ে আছি। ’ মুখিয়ে গেইলও। আর তাঁর আস্থা নিজেদের ছাড়িয়ে গোটা দলেই, ‘মাশরাফির নেতৃত্বাধীন দল অভিজ্ঞতায় পূর্ণ। বোলিং আক্রমণেও যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। দলে বোপারা আছে। এটা এমন পরিস্থিতি নয় যেখানে আমরা নির্দিষ্ট একজন ক্রিকেটারের ওপর নির্ভর করতে পারি। দলে অনেক ম্যাচ উইনার আছে। এমন নয় যে, জেতার জন্য শুধু গেইল বা ম্যাককালামের ওপর আমরা নির্ভর করব। ’

বলছেন বটে, তবে জয়ের জন্য রংপুর রাইডার্স খুব করে তাকিয়ে আছে ওই দুজনের দিকে। বিপিএল জমিয়ে তোলার জন্য কর্তৃপক্ষেরও হয়তো অভিন্ন প্রার্থনা!


মন্তব্য