kalerkantho


হঠাৎ দলে ম্যাক্সওয়েল

২৩ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



হঠাৎ দলে ম্যাক্সওয়েল

রাঁচিতে ভারতের বিপক্ষে শতরানের ইনিংস ছিল, কিন্তু এরপর ৭ ইনিংসে একটি হাফসেঞ্চুরিও নেই। টেস্ট দলে তাই জায়গাটা থিতু করতে পারেননি গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

অ্যাশেজের প্রথম দুই টেস্টের জন্যও তাঁকে বিবেচনায় রাখেননি নির্বাচকরা। হঠাৎই ম্যাক্সওয়েলের জন্য সুযোগ হয়ে এসেছে ডেভিড ওয়ার্নার ও শন মার্শের চোট। গতকাল অনুশীলনে দুজনেরই চোট ধরা পড়েছে, তাই বিকল্প হিসেবে শেফিল্ড শিল্ডে ভিক্টোরিয়ার হয়ে খেলতে থাকা ম্যাক্সওয়েলকে ডেকে আনা হয়েছে ব্রিসবেনে। অন্যদিকে ইংল্যান্ড ঘোষণা করে দিয়েছে একাদশ, গ্যাবায় তারাও নামছে চার পেসার নিয়ে।

ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ জোর দিয়েই বলেছিলেন তাঁর ডেপুটি ওয়ার্নারের খেলার কথা। তবে পরে অনুশীলনে নেটে ব্যাট করতে গিয়ে ঘাড়ে ব্যথার কারণে সমস্যা হচ্ছিল ওয়ার্নারের। ড্যারেন লেম্যানের সহকারী জন ডেভিসন আধঘণ্টা নেটে থ্রো ডাউন করেন ওয়ার্নারকে। খানিকটা অস্বস্তির ছোঁয়া থাকলেও ওয়ার্নার জোর দিয়েই বলছেন, ‘সামান্য ঘাড়ব্যথা আমাকে এই টেস্ট থেকে বসিয়ে রাখতে পারবে না। ’ ফিল্ডিং অনুশীলনের সময় ঘাড় মচকে গিয়েছিল ওয়ার্নারের।

স্মিথও বললেন, ‘ডেভিড ভালোই আছে। সে বলেছে খেলার আগে ঠিক হয়ে যাবে। ’ হেসেই বললেন, ‘সে তো বলেছে, দরকার হলে সে শিবনারায়ণ চন্দরপলের মতো খোলা স্টান্সও নেবে। ’ ওয়ার্নার হয়তো সেরে উঠবেন, তবে মার্শের অবস্থাটা সুবিধার নয়। পিঠের ব্যথা বরাবরই ভুগিয়েছে তাঁকে। এই বছরই ভারত সফরে চতুর্থ টেস্টে তাঁকে ভুগিয়েছে ‘স্টিফ ব্যাক’, আইপিএল খেলতে দেয়নি ২০১৬’র মৌসুমে। বাংলাদেশ সফরে না থাকা মার্শ-তনয় ফিরেছিলেন অ্যাশেজে, কিন্তু পিঠের চোট ফের তাঁকে বাইরে ঠেলে দিলে ফেরত আসাটাও মুশকিল হয়ে যাবে। এই দুজনের বিকল্প হিসেবেই ম্যাক্সওয়েলকে দলের সঙ্গে রেখেছেন নির্বাচকরা।

এই দুজনকে নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকাতেই সকালে ফিটনেস টেস্টের পর একাদশ ঘোষণা করেছে অস্ট্রেলিয়া, যারা কিনা ম্যাচের আগের দিন দল জানিয়ে অভ্যস্ত। তবে অন্য জায়গাগুলো মোটামুটি ঠিক। পেস বোলিংয়ে প্রথমবারের মতো একই টেস্টে জুটি গড়েছেন প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক ও জশ হ্যাজেলউড। তাঁদের জবাব দিতে ইংল্যান্ডও ভারী করেছে অস্ত্রাগার! জেমস অ্যান্ডারসন, স্টুয়ার্ট ব্রড, জেক বলের সঙ্গে ক্রিস ওকসের মিডিয়াম পেসটাও কাজে লাগাবেন জো রুট। ইনিংসের সূচনায় অ্যালিস্টার কুকের সঙ্গী মার্ক স্টোনম্যান। অস্ট্রেলিয়া সফরে প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে বেশ রান করেছেন এই বাঁহাতি, তিনটি হাফসেঞ্চুরি আর একটি সেঞ্চুরি। এরপর জেমস ভিনস, জো রুট, ডেভিড মালান, মইন আলী ও জনি বেয়ারস্টো। এই মাঠে ১৯৮৮-র পর হারেনি অস্ট্রেলিয়া আর ১৯৮৬-র পর কখনো জেতেনি ইংল্যান্ড। এবার কি সে হতাশা ভুলতে পারবে ইংল্যান্ড? ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া


মন্তব্য