kalerkantho


স্মিথ-মার্শে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিরোধ

২৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



স্মিথ-মার্শে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিরোধ

গতির লড়াই। কথার লড়াই।

সবই চলল সমান তালে। ব্রিসবেন টেস্টের দ্বিতীয় দিন লড়াইও হলো সমানে সমান। লাগাম নেই কারো হাতে। ইংল্যান্ডের ৩০২ রানের জবাবে অস্ট্রেলিয়া দিন শেষে করেছে ৪ উইকেটে ১৬৫ রানে। জো রুটের দলের চেয়ে এখনো পিছিয়ে ১৩৭ রানে। বড় স্কোরের আশা জাগিয়ে লাঞ্চের আগে অলআউট হলেও দিনটা হতে পারত ইংল্যান্ডের। ৭৬ রানে ৪ উইকেট নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ভিত নাড়িয়ে দিয়েছিল সফরকারীরা। তবে স্টিভেন স্মিথ আর শন মার্শের দৃঢ়তা ম্যাচে ফিরিয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে। অধিনায়কের মতো বুক চিতিয়ে লড়ে স্মিথ অপরাজিত ৬৪ রানে। মার্শ আজ ব্যাট করতে নামবেন ৪৪ রান নিয়ে। পঞ্চম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন থেকে দুজন গড়েছেন ৮৯ রানের জুটি।

বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম দিনে ইংল্যান্ড করেছিল ৪ উইকেটে ১৯৬। মইন আলী ও ডেভিড মালান সেখান থেকে স্কোরটা নিয়ে যান ২৪৬-এ। তখন মনে হচ্ছিল ৪০০’র পথে হাঁটছে ইংলিশরা। কিন্তু ৫৬ রানে শেষ ৬ উইকেট হারিয়ে লাঞ্চের আগেই গুটিয়ে যায় তারা! কৃতিত্বটা মিচেল স্টার্কদের আগুনে গতির পাশাপাশি নাথান লিয়নের মায়াবী ঘূর্ণিরও। ৫৬ করা ডেভিড মালানকে শন মার্শের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান মিচেল স্টার্ক। মইন আলীর সঙ্গে পঞ্চম উইকেটে দুজনের ৮৩ রানের জুটিটা ভাঙে তাতে। এর পরই হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে ইংল্যান্ড। মইন আলীকে (৩৮ রান) এলবিডাব্লিউ করার পর ক্রিস ওকসকে রানের খাতা খোলার আগে বোল্ড করেন নাথান লিয়ন। বাউন্সারে দুর্বলতা থাকায় স্টুয়ার্ট ব্রডের দিকে ধেয়ে আসতে থাকে একের পর এক শর্ট বল। ৩২ বলে ২০ করে জস হ্যাজেলউডের শিকার তিনি। জেমস অ্যান্ডারসন মাঠে নামতেই ডেভিড ওয়ার্নারের স্লেজিং, ‘স্বাগত সোয়ানের বন্ধু’। ২০১৩-১৪ মৌসুমে অ্যাশেজের মাঝপথে সোয়ানের অবসর নেওয়ার কথাই অ্যান্ডারসনকে স্মরণ করিয়ে রাগাচ্ছিলেন তিনি। ইংল্যান্ড ৩০২ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর অ্যান্ডারসন যেমন আগুনে বোলিং করেছেন তাতে তাঁর অবসর নিয়েই বরং বেশি অপেক্ষায় থাকার কথা অস্ট্রেলিয়ানদের। স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স ৩টি করে আর লিয়ন নিয়েছেন ২ উইকেট।

ওপেন করতে নেমে অভিষিক্ত ক্যামেরন ব্যানক্রফট মাত্র ৫ রানে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন জনি বেয়ারস্টোকে। স্পিন সামলাতে হিমশিম খাওয়া উসমান খাজা ১১ রানে এলবিডাব্লিউ মইন আলীর বলে। জেক বলকে পুল করতে গিয়ে শর্ট মিড উইকেটে ডেভিড ওয়ার্নারও (২৬ রান) ক্যাচ তুলে দেন ডেভিড মালানের হাতে। চা-বিরতির পরপরই পিটার হ্যান্ডসকম্বকে এলবিডাব্লিউ করে অস্ট্রেলিয়াকে চেপে ধরেছিলেন জেমস অ্যান্ডারসন। তখনই প্রতিরোধ স্টিভেন স্মিথ ও শন মার্শের। ২৪ টেস্টের ছোট্ট ক্যারিয়ারে আটবার দল থেকে বাদ পড়ে ফিরেছেন মার্শ! এবারের ফেরাটা স্মরণীয় করেছেন স্মিথের সঙ্গে পঞ্চম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৮৯ রানের জুটিতে। মালান-মইনের পঞ্চম উইকেটের জুটির মতো এই দুজনের পার্টনারশিপ বড় স্কোরের স্বপ্ন দেখাচ্ছে স্বাগতিকদের।

ব্যাট-বলের এই লড়াইয়ের পাশাপাশি ব্রিসবেন গ্যালারির সুইমিং পুলের জলোচ্ছ্বাসও উপভোগ করছেন দর্শকরা। শেন ওয়ার্নের বডিলাইন ফিরিয়ে আনার হুমকি ছাপিয়ে আলোচনায় স্বল্পবসনা সুন্দরীদের ‘বডিলাইন’। সুইমিং পুলে জায়গা পাওয়ার প্রক্রিয়াটাও অভিনব। গ্যালারিতে ছড়িয়ে থাকা স্পটাররা বেছে নেবেন সুন্দরীদের। এর অন্যতম শর্ত বিকিনি বা বিচ পোশাক। কেউ কেউ তো মজা করে বলেই বসেছেন ব্যাটসম্যানদের মনঃসংযোগে না চিড় ধরিয়ে ফেলেন এই সুন্দরীরা! এএফপি


মন্তব্য