kalerkantho


রোনালদোর জন্য মঞ্চ প্রস্তুত!

৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



রোনালদোর জন্য মঞ্চ প্রস্তুত!

‘পাঁচবার ব্যালন ডি’অর জেতা ভালো তবে আমি সাতবার জিততে চাই। আমার সৌভাগ্যের সংখ্যা সাত। সন্তানও চাই সাতটা’—কিছুদিন আগে বলেছিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। সাতবার ব্যালন ডি’অরে চুমু খেতে পারবেন কি না সময়ই বলবে। তবে অন্তত পঞ্চমবারের জন্য মঞ্চটা প্রস্তুত। আজ জানানো হবে ২০১৬-১৭ মৌসুমের ব্যালন ডি’অর জয়ীর নাম। এর অন্যতম দাবিদার পর্তুগিজ যুবরাজ। রোনালদোকে হট ফেভারিট ভেবে তাঁর পক্ষে ব্রিটিশ বাজিকরদের দর ১০-১। লিওনেল মেসির বেলায় দরটা কমে দাঁড়িয়েছে ৬-১। স্প্যানিশ দৈনিক মুন্দো দেপোর্তিভো, ইংল্যান্ডের দ্য সানসহ ইউরোপের অনেক সংবাদমাধ্যম আবার একযোগে আগাম জানিয়েছে, এবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী রোনালদো! তারা আরো জানিয়েছে, ফ্রান্সের সাবেক তারকা ডেভিড জিনোলার কাছ থেকে রোনালদো আইফেল টাওয়ারের ওপর দাঁড়িয়ে নেবেন ট্রফিটা! ফিফার সঙ্গে বিচ্ছেদের পর হারানো গৌরব ফিরে পেতেই নাকি এমন আয়োজন। অথচ গত বছরের ব্যালন ডি’অরে কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছিল না।

ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো মাদ্রিদে থেকেই ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিনের দেওয়া এই বিশ্বসেরার ট্রফিটা নিয়েছেন।

২০১৭-র শেষ ভাগটা বাজে যাচ্ছে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর। লা লিগায় গোল মাত্র দুটি। তবে চ্যাম্পিয়নস লিগে লক্ষ্যভেদ আটবার। গত মৌসুমে ২৫ গোল করে রিয়ালকে জিতিয়েছিলেন লা লিগা। চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপাও এনে দেন ১২ গোল করে। সেই কীর্তিতে ২০১৭-র সেরা ফুটবলার হিসেবে ফিফার ‘দ্য বেস্ট’ জিতে নিয়েছেন তিনি এরই মধ্যে। গত মৌসুমে লা লিগায় ৩৭ গোল আর ৯টি অ্যাসিস্ট করেও শিরোপা না জেতায় পিছিয়ে মেসি। তিনি ঝলমলে এবারও। লা লিগায় করে ফেলেছেন ১৩ গোল, অ্যাসিস্ট চারটি। আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপে নিয়ে গেছেন ইকুয়েডরের বিপক্ষে রূপকথার হ্যাটট্রিকে। তাঁর এ মৌসুমের শুরুর পারফরম্যান্সের ফল পেতে পেতে আগামী বছর।

এর আগে ব্যালন ডি’অর দেওয়া হতো আগে, তাতেই ফিফার সেরা কে হচ্ছেন, তা জানা হয়ে যেত। ২০০৫ থেকে এ পর্যন্ত এর ব্যত্যয় হয়নি। যিনিই ফ্রান্স ফুটবলের পুরস্কার জিতেছেন, তিনিই হয়েছেন ফিফার সেরা। মাঝখানে দুটি পুরস্কার একীভূত থাকার সময় তো ভিন্ন দুজনের সেরা হওয়ার প্রশ্নই ছিল না। এবারও তাই রোনালদোর ওপরই আলো। আর এত হিসাব-নিকাশেরও কিছু নেই। আগামী সপ্তাহে ফ্রান্স ফুটবলের প্রচ্ছদ প্রতিবেদনটি হবে ব্যালন ডি’অর যিনি জিতছেন, তাঁকে নিয়ে। তাঁর একটি সাক্ষাৎকারও থাকবে তাতে। এই সাক্ষাৎকার পর্বটা আগেই হয়ে যাওয়ায় যিনি জিতেছেন তিনি তো বটেই, তাঁর কাছের লোকরাও খবরটি জেনে যায়। দুই দিন আগে রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ যে ঘোষণা দিয়ে দিয়েছেন, এ সপ্তাহে রোনালদোর হাতেই উঠছে ব্যালন ডি’অর কিংবা জিনেদিন জিদান যে বলেছেন আরেকটি ব্যালন ডি’অর পর্তুগিজ তারকাকে এই মৌসুমের বাকি সময়টার জন্য আরো উদ্দীপ্ত করবে, তাতে তাই অবাক হওয়ার কিছু নেই। পঞ্চমবারের মতো রোনালদোই যে এবার এ পুরস্কারটি জিতছেন এটি তাই একরকম ওপেন সিক্রেটের মতো। গত বছর তো পুরস্কার ঘোষণার আগে ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিনের পরবর্তী সংখ্যার ওই প্রচ্ছদটিই ফাঁস হয়ে গিয়েছিল। এবার অবশ্য এখনো তেমন কিছু হয়নি।

ম্যাগাজিনটি এরই মধ্যে ৩০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে। তাতে ফিফা বেস্টের সেরা তিনে থাকা রোনালদো, মেসি ও নেইমারের সঙ্গে জিয়ানলুইজি বুফন, আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান, এডেন হ্যাজার্ড, রবার্ত লেভানদোস্কির মতো তারকারা আছেন অবধারিতভাবেই। সারা বিশ্বের ১৭৩ জন ক্রীড়া সাংবাদিকের ভোটে আজ জানা যাবে তাঁদের মধ্যে কে সেরা। মেসি পুরস্কারটা জিতেছেন রেকর্ড পাঁচবার ২০০৯, ২০১০, ২০১১, ২০১২ ও ২০১৫ সালে। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো চারবার জিতেছেন ২০০৮, ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৬ সালে। আজ কি মেসির পাশে বসার দিন পর্তুগিজ যুবরাজের? মার্কা


মন্তব্য