kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

নির্বাচকরা আমাকে একটা সুযোগ দিয়ে দেখতে পারেন

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নির্বাচকরা আমাকে একটা সুযোগ দিয়ে দেখতে পারেন

আর কারো যেখানে ৯ হাজারই হয়নি এখনো, সেখানে প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে কাল প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ১০ হাজার রানের মাইলফলক পেরোলেন তুষার ইমরান। বিসিএলে দক্ষিণাঞ্চলের এই ব্যাটসম্যান আনন্দের দিনে কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে বললেন তাঁর দুঃখের কথাও

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ হাজার রানের মাইলফলকে পৌঁছানোর রোমাঞ্চ কতখানি?

তুষার ইমরান : ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয় ভাই। ৫ হাজার রান করার পর ৮ হাজারের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলাম। সেই ৮ হাজারও যখন দ্রুতই হয়ে গেল, তখন ঠিক করলাম ১০ হাজার পেরোতে হবে আমাকে।

প্রশ্ন : এই লক্ষ্যেও পৌঁছে গেলেন খুব দ্রুতই।

তুষার : ঠিক তাই। পরের ৫ হাজার রান আমি খুব দ্রুতই করেছি। প্রথম ৫ হাজার রান করতে খুব সম্ভবত ৯০টি ম্যাচ লেগেছিল আমার। সেখান থেকে ১০ হাজারে পৌঁছে গেলাম কত কম ম্যাচ খেলে! এত দ্রুত ১০ হাজারে পৌঁছে যাওয়ার মাধ্যমে হাতে-কলমে একটি ব্যাপার কিন্তু আমি প্রমাণও করতে পেরেছি।

 

প্রশ্ন : কী সেটি?

তুষার : বয়স ৩০ পেরিয়ে যাওয়ার পর যে ব্যাটসম্যানরা আরো বিকশিত হয় এবং তাঁদের পারফরম্যান্স খোলে, আমি এখন তাঁর জ্বলন্ত প্রমাণ।

প্রশ্ন : সেটি প্রমাণ করতে নিশ্চয়ই গত কয়েকটি মৌসুমের পারফরম্যান্স অনুপ্রেরণা ছিল?

তুষার : অবশ্যই। তবে শেষ কয়েকটি বিসিএল না খেললে হয়তো এত দ্রুত এই মাইলফলকে আমি পৌঁছাতে পারতাম না।

প্রশ্ন : দর্শকবিহীন মাঠে এই মাইলফলক পেরোনোর উদ্‌যাপনটা কেমন হলো?

তুষার : সতীর্থরাও জানত যে আমার ১০ হাজার হতে চলেছে। আমি জানতাম যে ৩৫ রান লাগবে আরো। কিন্তু ৩৪ হওয়ার পরেই ওরা হাততালি শুরু করে দিল। পরে বাউন্ডারি মেরে মাইলফলকটা পেরিয়েই যাই।

প্রশ্ন : আনন্দের দিনে কি দুঃখও হচ্ছে না?

তুষার : অবশ্যই হচ্ছে। কিন্তু দুঃখ পেয়ে বসে থাকলে তো হবে না। আমি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে আরো রেকর্ড গড়ে যেতে চাই। এক মৌসুমে সর্বোচ্চ ১,২৭০ রান আমার। সর্বোচ্চ ২৫টি সেঞ্চুরিও আমার। ১০ হাজার রানও হয়ে গেল। আমি থামতে চাই না। আরো রেকর্ড গড়তে চাই।

প্রশ্ন : জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন কি এখনো দেখেন?

তুষার : আমি টেস্ট খেলার স্বপ্নটা এখনো দেখি। শেষ টেস্ট খেলেছি ১০ বছর আগে। নির্বাচকরা মাঠে এসে খেলা দেখেন না ঠিক, কিন্তু একটা ধারণা তো নিশ্চয়ই রাখেন। তাঁরা যদি একটা সুযোগ দিয়ে দেখেন, তাহলে আমার স্বপ্নটা বাস্তবায়িত হতে পারে। সরাসরি জাতীয় দলে না হোক, সুযোগ দেওয়ার আরো অনেক জায়গা তো আছে। যেখানে আমি নিজের সামর্থ্যের প্রমাণটা দিতে পারি। আর জাতীয় লিগে খুলনা দলেই জাতীয় দলের খেলোয়াড় সবচেয়ে বেশি। আমি সেটিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েই এত দিন রান করেছি। একটা সুযোগের অপেক্ষায় আছি।


মন্তব্য