kalerkantho


খেলা বদলে আরেক অলিম্পিকে

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



খেলা বদলে আরেক অলিম্পিকে

পিটা নিকোলাস তৌফাতোফুয়াকে মনে আছে? গায়ে তেল মেখে টোঙ্গার পতাকা হাতে রিও অলিম্পিকে চমকে দিয়েছিলেন সবাইকে। তায়কোয়ান্দোয় তেমন কিছু করতে পারেননি, তবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তেল চপচপে সেই ছবিটা হৃদয়ে গেঁথে আছে অনেকের। দুই বছর না যেতে আরো একবার অলিম্পিকে আসছেন পিটা নিকোলাস! এবার খেলা বদলে শীতকালীন অলিম্পিকে। ক্রস-কান্ট্রি স্কিয়ার হিসেবে গত পরশু যোগ্যতা অর্জন করেছেন এ বছর দক্ষিণ কোরিয়ায় হতে যাওয়া অলিম্পিকে।

তায়কোয়ান্দোয় কিছু করতে পারবেন না, পিটা নিকোলাস বুঝেছিলেন আগেই। এ জন্য চ্যালেঞ্জ নেন ক্রস-কান্ট্রি স্কিয়ার হওয়ার। সেটা অবাস্তবই ছিল, কারণ টোঙ্গায় বরফের পাহাড় নেই। হাল না ছেড়ে অনুশীলন শুরু করেন রোলার স্কি দিয়ে। কপাল ভালো ৩৪ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়ের। আন্তর্জাতিক রোলার স্কি ফেডারেশন বদল করে তাদের নিয়ম। তাতে রোলার স্কিং রেসের পয়েন্ট যোগ হবে ক্রস কান্ট্রি স্কিংয়ে। আরো আত্মবিশ্বাসী হয়ে নতুন উদ্যমে শুরু করেন তিনি। এরই ফল পেলেন গত পরশু আইসল্যান্ডের ইসাফোরুয়ারে।

গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক থেকে শীতকালীন অলিম্পিকে আসার যাত্রাটা সহজ ছিল না মোটেও। চার চারবার পরীক্ষা দিয়ে হতাশ হয়েছিলেন পিটা নিকোলাস। অর্জন করতে পারেননি অলিম্পিকে খেলার মতো পয়েন্ট। শেষ সুযোগ ছিল গত পরশু। সেখানে নিজেকে নিংড়ে পেয়ে গেছেন ছাড়পত্র। তাই খুশিতে ভাসছেন রীতিমতো, ‘আমার চ্যালেঞ্জ ছিল এক বছরের মধ্যে নতুন খেলায় মানিয়ে নিয়ে অলিম্পিকের যোগ্যতা আদায় করা। সবাই স্বপ্ন দেখে। সব স্বপ্ন সত্যি হবে এমন কথা নেই। কিন্তু দেশের প্রথম স্কি খেলোয়াড় হিসেবে আমি পেরেছি। ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না আনন্দটা।’ তায়কোয়ান্দো ছাড়ার ব্যাখ্যা দিয়ে জানালেন, ‘রিওতেই বুঝতে পারি তায়কোয়ান্দোয় আমার ভবিষ্যৎ নেই। একেবারে নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে বেছে নিয়েছিলাম স্কি। এক বছরের মাথায় অলিম্পিকে জায়গা পাওয়ার একটা ব্যাপার ছিল। দক্ষিণ কোরিয়ায় যেতে পারছি ভেবে রোমাঞ্চিত আমি।’ এই অলিম্পিকেও নিশ্চয়ই দেখা মিলবে টোঙ্গার পতাকা হাতে তেল চপচপে খালি গায়ের পিটা নিকোলাসকে। এপি


মন্তব্য