kalerkantho


একই দিনে রিয়াল-বার্সা

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



একই দিনে রিয়াল-বার্সা

‘ছোট’দের বৃহস্পতিবারটা কেটেছে ইউরোপা লিগে। দুই রাতের ভেতর তারা কী করে ফের নামবে ঘরোয়া লিগের ম্যাচে। বরং মঙ্গল ও বুধবারে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলা ‘বড়’দের বিশ্রামটা হয়েছে ঠিকঠাক। তাইতো কাল ইউরোপের বেশির ভাগ লিগেই একসঙ্গে মাঠে নামছে বড় দলগুলো। লা লিগায় ঘণ্টা তিনেকের ব্যবধানে মাঠে নামছে বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে অবশ্য সব উত্তেজনা রবিবারের জন্য বরাদ্দ, সেদিন যে মুখোমুখি চেলসি ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড! বুন্দেসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখ খেলবে হার্থা বার্লিনের বিপক্ষে আর সিরি ‘এ’তে ইন্টার মিলান খেলবে বেনেভেন্তোর সঙ্গে।

আগের ম্যাচেই লেগানেসকে হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। টানা বেশ কিছু ম্যাচ জিতে সুসময়ের দেখা পেয়েছেন জিনেদিন জিদান। আলাভেসের বিপক্ষে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে নামার আগে সেই সুসময়ের ফায়দা নেওয়ার কথাই বললেন সাবেক এই ফরাসি কিংবদন্তি, ‘আমরা ভালো একটা পারফরম্যান্স উপহার দিতে চাই মাঠে, সেটা করতে পারলেই আমাদের জেতার সুযোগ বাড়বে। আলাভেস তাদের কোচ বদলেছে আর সবশেষ পাঁচ ম্যাচের চারটিতেই জিতেছে। তারা কখনো হাল ছাড়ে না, তবে আমরাও প্রস্তুত থাকব।’

রিয়াল জিতছে, তবে গোল হজম করে। এমন কথাই বলছেন অনেকে। পিএসজি, লেগানেসের সঙ্গে আগে গোল হজম করাটাই হয় পালে হাওয়া দিয়েছে এই সূত্রের। জিদান গোল হজম করাটাকে দেখছেন খেলার অংশ হিসেবেই, ‘আমরা সব সময়ই গোল খেয়েছি এবং গোল খাবও। আমরা সেরা দলগুলোর বিপক্ষে খেলছি, এই পর্যায়ে ভুল কমিয়ে আনাটাই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিপক্ষ আমাদের সমস্যায় ফেলবেই, সেটা প্রত্যাশিত। এটা খেলারই অংশ। যতগুলো গোল হজম করেছি, তার চেয়ে একটা বেশি করতে পারলেই আমি খুশি।’

আলাভেসের সঙ্গে ম্যাচকে সামনে রেখে চূড়ান্ত অনুশীলন সেরে নিয়েছে মাদ্রিদিস্তারা। লেগানেসের বিপক্ষে ম্যাচে ছিলেন না ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো, এই ম্যাচের আগে তিনিও ব্যস্ত অনুশীলনে। ভ্যালেজো, ক্রস, মডরিচ, মার্সেলো—সবাই পুনর্বাসন কাজে ব্যস্ত ছিলেন। আক্কেল দাঁত তোলার কারণে অনুশীলনে ছিলেন না আসেনসিও, পিএসজির বিপক্ষে দুটি গোলের সুযোগ তৈরি করে দেওয়া এই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হয়তো আজ খেলবেনও না।

জিরোনার সঙ্গে খেলা বার্সেলোনার, কাতালোনিয়ার এই ক্লাবটি স্পেনের ফুটবল লিগের সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলা অষ্টম কাতালান ক্লাব। এবারই প্রথমবারের মতো জিরোনা খেলবে ন্যু ক্যাম্পে। ১৯৫৭ সালে ন্যু ক্যাম্পের দরজা খোলার পর আটটি কাতালান ক্লাব খেলেছে এই মাঠে এবং সব দলই তাদের অভিষেক ম্যাচে হেরেছে, কেউ কেউ বেশ বড় ব্যবধানেও। ২০১২ সালে কোপা দেল রে’তে হসপিতালেত তো হেরেছিল ৯-০ গোলে, লিগে ৫-০টাই সবচেয়ে বড় ব্যবধান।

কাতালান ক্লাব বলেই দুই দলেই পরস্পরের চেনামুখের সংখ্যাটা কম নয়। জিরোনার মার্ক মুনিয়েসো বার্সায় খেললেও পায়ের নিচে মাটি শক্ত করতে পারেননি, কার্লেস প্লানাস ও আন্তনিও লোরেনজো বার্সেলোনার ‘বি’ দলে খেললেও জায়গা করে নিতে পারেননি মূল দলে। শহরের অপেক্ষাকৃত ছোট দলের সঙ্গে প্রদেশের সবচেয়ে বড় দলের খেলায় ফলটা কী হতে পারে, সেটা অনুমিতই। তবে সেসব ছাড়িয়ে দুই দলের সমর্থকদের মনেই উত্সবের আমেজ। যেটা বুঝে ন্যু ক্যাম্প কর্তৃপক্ষও মাঠের বাইরে রেখেছে ‘বার্বি ডে’র বিশেষ আয়োজন, যেখানে হরেক রকম বার্বি ডলের সঙ্গে ছবি তোলা, ফেস পেইন্টিং, ড্রাম প্যারেডসহ অনেক আয়োজন। নতুন কাতালান ডার্বি বলে কথা! ক্লাব ওয়েবসাইট


মন্তব্য