kalerkantho


পারফরম্যান্সের আশায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পারফরম্যান্সের আশায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ বছরের শুরু থেকে পিছিয়ে যেতে যেতে একদম শেষ মাসে গিয়ে ঠেকেছে। আর পেছানোর সুযোগ ছিল না বলেই হয়তো ডিসেম্বরে গিয়ে থেমেছে। ১৮ থেকে ৩১ ডিসেম্বরে হবে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল।

দেশের ফুটবলের সামগ্রিক পশ্চাৎপদতার ধারা অব্যাহাত রাখছে কাজী সালাউদ্দিনের কমিটি। মাঠের খেলায় তো বটেই, সাংগঠনিকভাবেও যেকোনো খেলা পিছিয়ে নেওয়ার সহজাত গুণ বাফুফেকে অন্যদের চেয়ে আলাদা করে দেয়। গতকাল নির্বাহী কমিটির জরুরি সভায় এই আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তটি সিনিয়র সহভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী জানিয়েছেন এভাবে, ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের আগের সূচি অনুযায়ী আমরা বিদেশি দলগুলোকে এক করতে পারছি না। তা ছাড়া জাতীয় দলের বর্তমান অবস্থা, আমাদের প্রস্তুতি এবং বিদেশি দলগুলোর এই সময়ে অপরাগতা—সব মিলিয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ পিছিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটি শুরু হবে আগামী ১৮ ডিসেম্বর।’ বাফুফের ‘তামাশার’ ফুটবল ক্যালেন্ডার অনুযায়ী এটি ছিল মার্চে। কিছুদিন আগে তা পিছিয়ে নেওয়া হয়েছিল আগামী এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহে। গতকাল সেটা পাঠিয়ে দিয়েছে ডিসেম্বরে। আসলে যেকোনো ইস্যুতে বাফুফের প্রথম সূচি ধর্তব্যের মধ্যে নিতে নাই!

তবে সালাম মুর্শেদীর কথাগুলো ব্যাখ্যা করলে টুর্নামেন্ট পিছিয়ে দেওয়ার বড় একটা কারণ হলো জাতীয় দলের সংকটাপন্ন অবস্থা। সভা শেষে আরেক সদস্যের কথায়ও তার মিল খুঁজে পাওয়া যায়, ‘সভায় অনেকে এপ্রিলে করার মত দিলেও জাতীয় দলের পারফরম্যান্স এবং দলবদলজনিত সমস্যার কারণে শেষ পর্যন্ত আগামী মাসে করার ঝুঁকি নেয়নি। এপ্রিলে হলে বাংলাদেশ দলের বেহাল অবস্থা হবে, সেটা সবাই বোঝে। কারণ এখনো কোচই চূড়ান্ত হয়নি। কখন কোচ আসবে আর কখন প্র্যাকটিস হবে।’ ১০ অক্টোবর ভুটানের কাছে লজ্জাকর হারের পর জাতীয় দলের আর কোনো খেলা হয়নি। ঠিক করতে পারেনি বিদেশি কোচও। তা ছাড়া কাল থেকে ফুটবলের মাসব্যাপী দলবদল। দলবদলজনিত চিরাচরিত শঙ্কাটাও জেগে উঠছে—দলবদল থাকলে ফুটবলাররা মাঠে শতভাগ দেয় না। এ জন্যই শেষ পর্যন্ত এপ্রিলের বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ চলে গেছে ডিসেম্বরে। তবে ফুটবল ফেডারেশনে যখন অর্থসংকট নিত্য ব্যাপার তখন স্পন্সরের অভাবের সন্দেহটাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না। সিনিয়র সহসভাপতি অবশ্য বেশ জোর দিয়েই স্পন্সরের নিশ্চয়তা দিয়েছেন, ‘স্পন্সর কোনো সমস্যা নয়। তা ছাড়া ফিফার অনুদানও পেয়েছি, টাকার অভাব নেই। জাতীয় দলের প্রস্তুতি এ মুহূর্তে ভালো নয়। তা ছাড়া আগামী জানুয়ারিতে সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ আছে, তার আগে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ হলে সাফের প্রস্তুতিটাও ভালো হবে।’ তাহলে এটাই আপাতত বিশ্বাস করতে হবে, জাতীয় দলের পারফরম্যান্সের আশায় ডিসেম্বরে নিয়ে গেছে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ। লিগ শেষে খেলোয়াড়দের পায়ে ফুটবল থাকবে, সেই জোরেই জাতীয় দল পারফরম করবে।


মন্তব্য

abade commented 1 days ago
report ta te vul a vora. sports editor ,editor ra ki kore?
abade commented 1 days ago
report ta ki thik ase?editors?