kalerkantho


দুঃখ প্রকাশ করলেন খালেদ মাহমুদ

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দুঃখ প্রকাশ করলেন খালেদ মাহমুদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আবেগের অর্গলটা তাঁর ভেঙে পড়েছিল সেদিন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শেষে গণমাধ্যমকে একেবারে ধুয়ে দিয়েছিলেন খালেদ মাহমুদ। ‘এখন মিডিয়া ফিশি’, ‘আমাদের ক্রিকেটের উন্নতির অন্তরায় মিডিয়া’, ‘মিডিয়া বেশি নেতিবাচক হয়ে যাচ্ছে’—এমন নানা কথাই বলেছিলেন। বাংলাদেশের ক্রিকেট পরিবেশ নোংরা হয়ে যাচ্ছে বলেও এর দায় পরোক্ষে চাপিয়েছিলেন সেই গণমাধ্যমের ওপরই।

১২ দিন পর ওই কথাগুলোর জন্য অনুতাপ হচ্ছে এখন জাতীয় দলের এই সাবেক অধিনায়কের। সেদিনের কথাগুলোর জন্য কাল দুঃখ প্রকাশ করেছেন তাই মাহমুদ।

‘আমি হয়তো একটু বেশি প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছি; আবেগপ্রবণ হয়ে গিয়েছিলাম। গণমাধ্যমের অনেকেই হয়তো বা খুব একপেশেভাবে বিষয়টা নিয়েছেন। কিন্তু আমি কাউকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেটে অবশ্যই গণমাধ্যমের অবদান অনেক—এটা স্বীকার করতেই হবে। সেদিনের কথাবার্তার জন্য আমি দুঃখিত; যদি কাউকে আঘাত দিয়ে থাকি। তবে আমি তা দুঃখ দেওয়ার জন্য কিছু বলিনি, আবেগ থেকে বলে ফেলেছি’—কাল এভাবেই নিজের অবস্থান বদলেছেন মাহমুদ।

অবস্থান বদলেছেন তাঁর জাতীয় দলে কোচ থাকা, না থাকা নিয়েও। টেকনিক্যাল ডিরেক্টরের মোড়কে ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট-টি টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দলের কোচ ছিলেন মাহমুদ। সেদিন গণমাধ্যমকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর পাশাপাশি এ দায়িত্ব চালিয়ে যেতে অনাগ্রহের কথা জানিয়েছিলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি আর আগ্রহী না। আমার আসলে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সঙ্গেই কাজ করতে ইচ্ছে করছে না।’ মাহমুদের কালকের কথায় অবস্থান বদলের ইঙ্গিত, ‘আমি সব সময় লড়াই করি। লড়াই করতে পছন্দ করি। জানি যে, একটা সিরিজ আমরা ভালো করিনি। প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। আমাকে বোর্ড থেকে সিরিজভিত্তিক একটা দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। খেলার ফল যেহেতু ভালো হয়নি, সবাই বিদেশি কোচের দাবি করছেন। আমিও চাই ভালো কোচ আসুক; বাংলাদেশ ক্রিকেট এগিয়ে যাক। কিন্তু দায়িত্ব দেওয়া হলে আমি কখনো পিছপা হই নাই। যেকোনো মুহূর্তে দায়িত্ব দিয়েছে মাথা পেতে নিয়েছি। আমি পেছনের দরজা দিয়ে বের হওয়ার ছেলে না।’ শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠেয় ত্রিদেশীয় সিরিজেও যদি আবার দায়িত্ব দেওয়া হয়? ‘সেটাই আমি বললাম—কখনো তো মানা করিনি। তবে ধারণা একটা আছে হয়তো ভালো কোচ ছিল না বলেই দল ভালো করেনি। এখানে স্পষ্ট একটা কথা বলতে চাই। এটা মানতেই হবে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলিনি। আমরা বলি উইকেটের দোষ, এটা-সেটা। উইকেটের দোষ না। যদি ওরা পারে, আমরা পারব না কেন। ভালো ক্রিকেট খেলিনি, এটা মানতেই হবে।’

শ্রীলঙ্কায় সেই ভালো খেলার মিশন। ওখানে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে অবসর থেকে ফেরাতে চায় বিসিবি। মাহমুদ জাতীয় দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হবার পাশাপাশি বোর্ডেরও তো ডিরেক্টর। মাশরাফির এই ফরম্যাটে ফেরা, না ফেরার প্রশ্নে বল অবশ্য ঠেলে দিয়েছেন ওই পেসারের কোর্টেই, ‘যেহেতু ও অবসর ঘোষণা করেছে, তাই ব্যাপারটা সম্পূর্ণ মাশরাফির ওপর নির্ভর করছে। যদি ও খেলতে চায় তাহলে বোর্ডকে জানাতে হবে। তখন নির্বাচনের বিষয়টা আমরা চিন্তা করব। আমি মনে করি, মাশরাফি যদি ফিরে আসে তাহলে বাংলাদেশের জন্য ভালোই হবে। আমি ওকে বলেছিলাম ইতিবাচক চিন্তা করতে। তবে আমার মনে হয় না, ও ফিরে আসতে চাইবে।’


মন্তব্য