kalerkantho


একাই ৪

হ্যাটট্রিকের হাফসেঞ্চুরি

২০ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



হ্যাটট্রিকের হাফসেঞ্চুরি

লিওনেল মেসির চেয়ে ১১ গোল পিছিয়ে যখন, তখনই মেসিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার বাজি ধরেন সতীর্থদের সঙ্গে! রোনালদো বাজি জিতবেন কিনা বোঝা যাবে মৌসুম শেষেই, তবে এগিয়ে চলেছেন ঝড়ের বেগে। গত পরশু জিরোনাকে বিধ্বস্ত করা ম্যাচে লক্ষ্য ভেদ করলেন চারবার। এই চার গোলে লা লিগায় এই মৌসুমে লক্ষ্য ভেদ করলেন ২২ বার, যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। লিওনেল মেসি শীর্ষে ২৫ গোল নিয়ে। সবশেষ খেলা ১১ ম্যাচে গোল ২১টি! তাহলে কি মেসিকে ছাড়িয়ে পিচিচি জিততে যাচ্ছেন রোনালদোই? কোচ জিনেদিন জিদানের প্রত্যাশা তেমনই। সতীর্থ লুকাস ভাসকেসও চান সেটাই, ‘রোনালদো এককথায় অবিশ্বাস্য। আমার বিশ্বাস এবার পিচিচি জিতবে ও।’

পিচিচি জেতা না জেতার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ অর্জন, ক্যারিয়ারে ৫০তম হ্যাটট্রিকের মাইলফলকে পা রেখেছেন পর্তুগিজ যুবরাজ। এর ৩৪টিই লা লিগায়। বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এই লিগে রোনালদোর চেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক নেই আর কারো। মেসির হাটট্রিক ২৭টি। তাঁর প্রথম হ্যাটট্রিকটি ২০০৭-০৮ মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে নিউক্যাসলের বিপক্ষে। ম্যাচটি ৬-০ গোলে জিতেছিল ম্যানইউ। সেই মৌমুমে ৪২ গোল করে স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের দলকে জেতান চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ। রেড ডেভিলদের হয়ে এটাই তাঁর একমাত্র হ্যাটট্রিক।

রিয়াল মাদ্রিদের পক্ষে ৪৪ হ্যাটট্রিকের ৩৪টি লা লিগায়, সাতটি চ্যাম্পিয়নস লিগে, দুটি কোপা দেল রেতে আর একটি ক্লাব বিশ্বকাপে। জাতীয় দলের হয়ে হ্যাটট্রিক পাঁচটি। এর চারটি বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব আর একটি ইউরো বাছাইয়ে। সবচেয়ে বেশি পাঁচটি হ্যাটট্রিক সেভিয়ার বিপক্ষে। তিনটি করে হ্যাটট্রিক গেতাফে, এস্পানিওল, সেল্তা ভিগো ও অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে।  গত পরশু জিরোনার জালে বল পাঠিয়েছিলেন চারবার। এ নিয়ে ৯ বার কোনো দলের বিপক্ষে করলেন চারটি করে গোল। এ ছাড়া পাঁচটি করে গোলও আছে দুইবার। এর প্রথমটি ২০১৫ সালের এপ্রিলে গ্রানাদার বিপক্ষে ৯-১ গোলে জয়ের ম্যাচে। আরেকটি একই বছরের সেপ্টেম্বরে এস্পানিওলের মাঠে ৬-০ গোলের জয়ে।

জিরোনার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে হারার প্রতিশোধটা কড়ায়গণ্ডাতেই নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। রোনালদো একাই করেছেন ৪ গোল। মাঠজুড়ে খেলে গোলও করিয়েছেন সতীর্থদের দিয়ে। অন্য দুটি গোল লুকাস ভাসকেস ও গ্যারেথ বেলের। লা লিগায় ২২ গোল করে  রোনালদো পিচিচির লড়াইয়ে ফিরেছেন ভালোভাবে । মেসি শীর্ষে ২৫ গোল নিয়ে ও লুই সুয়ারেসের গোল ২১টি। তাই জিনেদিন জিদানের প্রত্যাশা, ‘আশা করছি ও মেসিকে ধরে ফেলবে এটা ওর জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি আমাদের জন্যও।’ সমান ২৯ ম্যাচ শেষে বার্সেলোনার পয়েন্ট ৭৫, অ্যাতলেতিকোর ৬৪, রিয়ালের ৬০।

জাতীয় দলের হয়ে পাঁচ হ্যাটট্রিকের সবচেয়ে স্মরণীয়টি ২০১৩ সালে বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব প্লে-অফে। প্রথম লেগে সুইডেনের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে গিয়েছিল পর্তুগাল। তাও নিজেদের মাঠে। ফিরতি লেগে জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের দলের বিপক্ষে দুরন্ত হ্যাটট্রিকে পর্তুগিজকে জেতান রোনালদো। বয়স ৩৩ বছর ছাড়িয়ে গেলেও এখনো গোলের ক্ষিদেটা আগের মতো তাঁর। মৌসুমের শুরুতে ১১ গোলে পিছিয়েও মেসিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার বাজিটা তো এমনি এমনি ধরেননি। মার্কা



মন্তব্য