kalerkantho


চুক্তি থেকে বাদ পড়েই সেঞ্চুরি মোসাদ্দেকের

২১ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



চুক্তি থেকে বাদ পড়েই সেঞ্চুরি মোসাদ্দেকের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ব্যাট করতে নেমেছিলেন ৮ নম্বরে। নেমে সেঞ্চুরি করে মোসাদ্দেক হোসেন প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চলের দ্বিতীয় ইনিংসের সংগ্রহ এমন জায়গায় নিয়ে যান যে কাল ম্যাচের শেষ দিনে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চলের পক্ষে ওই রান তাড়া করে জেতা সম্ভব ছিল না। মোসাদ্দেক ১০৭ বলে অপরাজিত ১০২ রানের ইনিংসটি খেললেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়ার ঠিক পরপরই।

দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে টুর্নামেন্ট এবং শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য বিসিএলের চলতি আসর যে বিরতি নিয়েছিল, তার আগেও দক্ষিণাঞ্চলের হয়ে করেছিলেন আরেকটি সেঞ্চুরি। অর্থাৎ ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির প্রতিযোগিতায় তিনি রানের মধ্যেই আছেন। অবশ্য চুক্তি থেকে ছয়জনকে বাদ দেওয়ার আনুষ্ঠানিক ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, তাঁদের পারফরম্যান্স চুক্তিতে জায়গা পাওয়ার মতো নয়। কোথাকার পারফরম্যান্স? ধরে নেওয়া যেতেই পারে যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের। সেখানে নিজেকে হারিয়ে খুঁজেছেন সৌম্য সরকার। ক্রমেই বিবর্ণ হয়েছেন তাসকিন আহমেদ। শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি হিসেবে আগেই চুক্তি থেকে বাদ পড়া নিশ্চিত ছিল যাঁর, সেই সাব্বির রহমানও ছিলেন প্রচণ্ড অধারাবাহিক। ইমরুল কায়েসকেও প্রত্যাশিত ফর্মে দেখা দিচ্ছেন না গত বেশ কিছুদিনই। এঁদের সবার সঙ্গে মোসাদ্দেককে আলাদা করার উপায় কিন্তু আছে।

গত বছর একটা লম্বা সময় চোখের ইনফেকশনের জন্য খেলার বাইরে ছিলেন মোসাদ্দেক। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজের দলে শুরুতে জায়গা পেয়েও তাই ছিটকে পড়তে হয়েছিল। যেতে পারেননি দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। তার আগে-পরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের সামর্থ্যের জানান কিন্তু দিয়েছেন। গত বছর মার্চে কলম্বোর পি সারা ওভালে বাংলাদেশের শততম টেস্টে তাঁর অভিষেক। তাতে প্রথম ইনিংসে করেন অপরাজিত ৭৫ রান। দারুণ ওই উপলক্ষ জয় দিয়ে উদ্‌যাপন করার ক্ষেত্রে দলকে ব্যাট হাতে নিরাশ না করা মোসাদ্দেক সীমিত ওভারের ক্রিকেটেও নিজের উপযোগিতা প্রমাণ করেছেন আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে। তাও আবার সেটি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে। কেন উইলিয়ামসন ও রস টেলরের ফিফটিতে ভিত পেয়ে যাওয়া কিউইরা যখন নিয়াল ব্রুম ও জিমি নিশামের ব্যাটে বড় সংগ্রহের দিকে এগোচ্ছিল, তখনই নিজের অফস্পিনে এই জুটি ভাঙা মোসাদ্দেক ৩ ওভারে ১৩ রান খরচায় ৩ উইকেট তুলে নিয়ে সাধ্যের মধ্যেই আটকান প্রতিপক্ষকে। চোখের ইনফেকশন পরবর্তী সময়ে দলে ফিরে চট্টগ্রামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলেছেন টেস্টে ম্যাচ বাঁচানো ইনিংসও। ৫৩ বলে ৮ রানের সেই অপরাজিত ইনিংস খেলেও পরের টেস্টে তাঁর বাদ পড়া নিয়েও সেই সময় বিতর্ক হয়েছিল।

চুক্তি থেকে তাঁর বাদ পড়া নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনও মানলেন যে, ‘অন্যরা পারফরম্যান্সের কারণেই বাদ পড়েছে। মোসাদ্দেকের ব্যাপারটি আলাদা।’ আলাদা কারণ পারফরম্যান্স ছিল। তবে মিনহাজুল বললেন ভিন্ন কথা, ‘ও তো লম্বা সময় বাইরে ছিল দলের।’ সেটি অসুস্থতার জন্য। ইনজুরির মতো অসুস্থও যে কেউ যখন-তখন হতেই পারেন। সেটি মেনেও প্রধান নির্বাচক মোসাদ্দেককে বঞ্চিত মনে করছেন না, ‘ওর চিকিৎসাও কিন্তু বিসিবিই করিয়েছে। তা ছাড়া আজও বিসিএলে সেঞ্চুরি করেছে। ভালো করতে থাকলে আবার নিশ্চয়ই চুক্তিতে ঢুকে যাবে।’ যাবেন তবে তাঁর বাদ পড়াটা অন্য পাঁচজনের চেয়ে অন্য রকম সমস্যা অবশ্যই। তবে মিনহাজুল যা বলেননি, সেটি বললেন বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির প্রধান আকরাম খান, ‘হ্যাঁ, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কিছু ভালো পারফরম্যান্স ওর আছে। কিন্তু আমরা এবার ঘরোয়া ক্রিকেটের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সও বিবেচনা করেছি। বিপিএল ও প্রিমিয়ার লিগে কিন্তু ওর পারফরম্যান্স অত সুবিধার ছিল না।’ অবশ্য আরেকটি সূত্রে মিলেছে অন্য খবরও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেই সূত্রের ভাষ্য, ‘ওর সমস্যা অনেকটা নাসিরের মতো। নিজের উন্নতির জন্য বাড়তি পরিশ্রম করার মানসিকতায় সমস্যা। তাই...।’ তাই চুক্তি থেকে বাদ দিয়ে শিক্ষা দেওয়ার চেষ্টা! এই অভিযোগ সত্যি হয়ে থাকলে পারফরম করেও বাদ পড়া মোসাদ্দেকের চুক্তিতে ফেরার লড়াইটা শুরু হলো কালকের সেঞ্চুরি দিয়েই। সবার আগে শুরু করে এখানেও বাদ পড়া অন্যদের চেয়ে আলাদা মোসাদ্দেক।


মন্তব্য