kalerkantho

এমন গোলও হয়!

২৮ মে, ২০১৮ ০০:০০



এমন গোলও হয়!

রেফারির শেষ বাঁশিতে কিয়েভ হয়ে ওঠে আনন্দ-বেদনার মঞ্চ। উল্লাসে ভেসে যাচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ আর হতাশার অতলে ডুবে লিভারপুল। ভয়ংকর দুটি ভুলে দুই গোল খাওয়ানো গোলরক্ষক লরিস কারিয়াস কাঁদছেন অবিরাম। কিন্তু তাঁকে সান্ত্বনা দিতে তাত্ক্ষণিকভাবে এগিয়ে যায়নি লিভারপুলের কোনো খেলোয়াড়। গোলরক্ষক কোচ জন আচটেরবার্গ ছুটে যান সাইডলাইন থেকে।

মাঠেই কাঁদতে কাঁদতে হাত জোড় করে লিভারপুল সমর্থকদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন কারিয়াস। পরে প্রতিক্রিয়ায়ও একই সুর, ‘কিছুই ভালো লাগছে না। আজ আমি নিজের দলকে হারিয়েছি। লিভারপুলের সবার জন্যই খারাপ লাগছে। আমার ভুলগুলোর জন্য ট্রফি জিততে পারিনি।’ খেলা শেষে ড্রেসিংরুমের অবস্থাও বলেছেন তিনি, ‘সবাই আমাকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করছিল। তবু যেন সব জায়গাতেই ছিল নীরবতা। কারণ সবাই বড্ড বেশি হতাশ ছিল। আমারও কিছু বলার ছিল না।’ তবে জীবন যে এখানে থেমে থাকবে না, তা-ও দৃঢ়তার সঙ্গে বলেছেন কারিয়াস, ‘গোলরক্ষকের জীবন এমনই। এখান থেকে আবার ঘুরে দাঁড়াতে হবে আমাকে।’

তাতে নিজ দলকে পাশে পাচ্ছেন এই জার্মান গোলরক্ষক। মাঠে তাঁর পাশে কেউ ছুটে না গেলেও গণমাধ্যমে কারিয়াসের জন্য খারাপ লাগার কথা বলেছেন লিভারপুলের কোচ-অধিনায়ক সবাই। ‘ওর দ্বিতীয় ভুল হয়েছে প্রথম ভুলের ধারাবাহিকতায়। অমন বাজে ভুল করলে তা মন থেকে তাড়ানো কঠিন। ভুল যে হয়েছে তা লরিস জানে, সবাই জানে। এমন এক ম্যাচে এমন এক মৌসুমের শেষে তা হওয়াটা দুর্ভাগ্যের। আর ছেলেটির জন্যও আমার খারাপ লাগছে।’ অধিনায়ক জর্ডান হেন্ডারসনও দলের হারের দায় এককভাবে গোলরক্ষকের কাঁধে না দিয়ে ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন সবাই মিলে, ‘কারিয়াসের ভুলের কারণে আমরা হারিনি। দল হিসেবে সবাই মিলে ফাইনালে উঠেছি; এখানে হারলামও সবাই মিলে। এই ম্যাচে আমরা যথেষ্ট ভালো খেলতে পারিনি।’ বিবিসি


মন্তব্য