kalerkantho


সেট পিসের বিশ্বকাপ

রাহেনুর ইসলাম   

১৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



ফ্রিকিক। আবারও গোল ইংল্যান্ডের। এবারেরটা ঐতিহাসিক। সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ২০ গজ দূর থেকে নেওয়া বাঁকানো শট সরাসরি জালে জড়ান কিয়েরান ট্রিপিয়ের। ২০০৬ বিশ্বকাপে ডেভিড বেকহামের পর বিশ্বকাপে এটাই ফ্রিকিক থেকে সরাসরি গোল ইংল্যান্ডের। একটা সময় সেট পিসে দুর্বল থাকা ইংলিশরা এবার দুর্বার। তাদের ১২ গোলের ৯টিই সেট পিস থেকে। শুধু ইংল্যান্ড নয়, এবারের বিশ্বকাপটাই যেন পেনাল্টি, ফ্রিকিক আর কর্নার থেকে গোলের। সেমিফাইনাল শেষে এই বিশ্বকাপে গোল ১৬১টি। এর ৭০টি সেট পিস থেকে, প্রায় ৪৪ শতাংশ! সেট পিস থেকে ১৯৯৮ বিশ্বকাপে ৩৬ শতাংশ গোলই ছিল এত দিনের রেকর্ড। অঙ্কটা বদলে গেল রাশিয়ায়।

গোল আদায়ে ফুটবল কোচদের পরিচিত কৌশল, ডি-বক্সে কর্নার বা ক্রস ফেলে কারো জোরালো হেডের অপেক্ষা। তাতে খুলতে পারে গোলের তালা। এই কৌশলটা কাজে লাগিয়েছে প্রায় সব দল। ভিএআরের জন্য বক্সে জার্সি টেনে ধরা বা সামান্য ছোঁয়ায় কাউকে ফেলে দিলে পেনাল্টির শঙ্কা থাকায় এ ধরনের ফাউল হয়েছে কম। সেট পিসে গোলও বেড়েছে তাতে। তাই ফ্রিকিক থেকে গোল ২১টি। এ ছাড়া পেনাল্টি ২১, কর্নার ২৬ ও থ্রো ইন থেকে গোল ২টি। আর পায়ের খেলায় মাথা দিয়ে গোল ৩২টি। এটা অবশ্য রেকর্ড নয়। ২০০২ বিশ্বকাপে হেড থেকে গোল হয়েছিল ৩৫টি।

এবার ২১টি ফ্রিকিক থেকে সরাসরি জালে জড়িয়েছে ৬টি। স্পেনের বিপক্ষে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর শেষ বেলার ফ্রিকিক গোলটি এর অন্যতম। বিশ্বকাপের অন্যতম সুন্দর গোলও সেটা। সবশেষ গত পরশু ক্রোয়েশিয়ার জালে সরাসরি ফ্রিকিকে গোল ইংল্যান্ডের কিয়েরান ট্রিপিয়েরের। তাতে সেট পিস থেকে এবার ইংল্যান্ডের গোল ৯টি। এর ৪টি কর্নার, ৩টি পেনাল্টি আর ২টি ফ্রিকিক। সোনার জুতা জয়ের অপেক্ষায় থাকা হ্যারি কেইনের ৬ গোলের ৩টিই পেনাল্টি থেকে। অস্ট্রেলিয়া, কোস্টারিকা, ইরান ও পোল্যান্ড এই চার দলের সব গোলই হয়েছে আবার সেট পিসে!



মন্তব্য