kalerkantho


বেতনের আলোচনায় পরিত্যাজ্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৯:১৮



বেতনের আলোচনায় পরিত্যাজ্য

ছবি অনলাইন

চাকরি নিয়ে সব ঠিকঠাক। এবার বেতন নিয়ে আলাপচারিতা। এই পরিস্থিতিতে অনেক চাকরিপ্রার্থী কিছু ভুল করে ফেলেন, যা কাম্য নয়। এমন কিছু মন্তব্য করে ফেলেন, যা চাকরিদাতাদের কাছে ‘অশোভনীয়’ মনে হয়। এসব মন্তব্য নিয়েই আজকের টিপস—

‘নতুন বিয়ে করেছি, বাসা বদলাব’

এসব একান্তই আপনার ব্যক্তিগত বিষয়। এ ধরনের কথা বলে চাকরিদাতার সহানুভূতি আদায়ের চেষ্টা করা শুধু বোকামি নয়, এতে হিতে বিপরীতও হতে পারে। তাই বেতন নিয়ে আলাপচারিতায় এ ধরনের অবান্তর কথা বলবেন না।

আরো পড়ুন : ক্যারিয়ার টিপস: শিখুন নয়তো সারাজীবন অনুতাপে ভুগতে থাকুন

‘আমি দুঃখিত, কিন্তু...’

দুঃখ প্রকাশ নয়। অনেকেই যখন চাকরিদাতা বা পদস্থ ব্যক্তিদের সামনে বসেন তখন ঘন ঘন দুঃখ প্রকাশ করেন। এটা ঠিক নয়, আর বেতন নিয়ে আলোচনার ক্ষেত্রে তো নয়ই। কেননা এখানে আপনি আপনার পারিশ্রমিক নিয়ে আলোচনা করছেন, যা আপনার অধিকার। সুতরাং বিব্রতবোধ করার কিছু নেই।

‘আমার প্রয়োজন’

আপনার প্রয়োজন বা আপনি এটা চান—তাতে কী? প্রত্যেকেই তো বেশি বেতন প্রত্যাশা করে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, তারা এর উপযুক্ত তো? অধিকাংশ ক্ষেত্রে এর উত্তর হয় ‘না’। তাই বেতন নিয়ে আলাপে নিজের প্রত্যাশার কথা না বলে প্রাপ্যতার কথা বলা উচিত।

আরো পড়ুন : ক্যারিয়ার কনসালট্যান্সি

‘বেশি বেতনের প্রস্তাব আছে’

এ কথা ভুলেও বলতে যাবেন না। এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে অন্য পাশ থেকে উত্তর আসবে, তাহলে সেটিই নিন, এখানে কেন এলেন।

‘অনেক দিন বেতন বাড়ছে না’

এ কথা হয়তো ঠিক যে অনেক দিন ধরে একই বেতনে আছেন, বাড়ছে না। কিন্তু সরাসরি এ কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে না বলাই ভালো। আপনার বিশ্বাস রাখতে হবে, কর্তৃপক্ষ আপনার কর্মপ্রক্রিয়ার ওপর নজরদারি করছে। সুতরাং সময়মতো তারাই সিদ্ধান্ত নেবে।

‘অন্যরা বেশি পাচ্ছে’

এটা আরেকটি ভুল। অন্যরা কী পাচ্ছে বা না পাচ্ছে সেটা আলোচনার বিষয় নয়। আপনি কী পেতে পারেন সেটা নিয়েই আলোচনা করুন। সে বিষয়ে আলোচনা করতেই আপনি ওখানে গেছেন।

-- এনডিটিভি অবলম্বনে ইমরোজ বিন মশিউর


মন্তব্য